গোদাগাড়ীতে গরু হারিয়ে প্রায় নিঃস্ব হয়ে পড়েছে সাইদুর


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২৩, ২০২২, ৯:২৮ অপরাহ্ন / ৪২১
গোদাগাড়ীতে গরু হারিয়ে প্রায় নিঃস্ব হয়ে পড়েছে সাইদুর

 

মোঃ রবিউল ইসলাম মিনাল, স্টাফ রিপোর্টার

রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার সাইদুর রহমান টিবলু (৫৫) পেশায় একজন কৃষক। বয়সের ভারে নুইয়ে পড়েছেন কিছুটা।তিন মেয়ে ও এক ছেলের বাবা তিনি। আয়ের উৎস হিসেবে কৃষি কাজের পাশাপাশি একটি গাভী পালন করেন। সাইদুর রহমান গাভীটিকে আদর করে ডাকতেন মামনি। গাভী থেকে প্রতিদিন দুধ পেতেন কমপক্ষে ২০ লিটার। দুধ বিক্রির টাকাতেই ছেলে মেয়ের পড়াশোনা ও সংসার চলতো তার।
গাভীর খাবার যোগাড় করতে প্রতিদিন মাঠ থেকে কাটতে হতো ঘাস।তাতেই চলতো দিব্যি।প্রতিদিন সকালে উঠে গরুর গোয়ালঘর পরিষ্কার, ঘাস কাটা, সংসার সামলানো নিজের কাঁধেই বহন করেন তিনি। এমন করেই মামনিকে নিয়ে কাটিয়েছেন তেরটি বছর। দীর্ঘ তের বছরে বন্ধুত্ব, মায়া ও ভালবাসা জন্মেছিল মামনি ডাকা গাভীটির উপর। কিন্তু শেষ রক্ষা করতে পারেননি সাইদুর রহমান।
অবশেষে,১৭ (অক্টোবর) আনুমানিক রাত ৩ টায় চোর চুরি করে নিয়ে যায় গাভী সহ বাচ্চাটিকে। ঘটনাটি ঘটে রাজশাহী জেলার গোদাগাড়ী উপজেলার মাটিকাটা এলাকায়।উপজেলার খেতুর এলাকা থেকে চুরি করে নিয়ে যায় গাভী সহ বাচ্চাটিকে।গাভীটির দাম আনুমানিক ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা।
প্রতিদিনের মত ভোর বেলায় গোয়ালঘর পরিষ্কার করতে যেয়ে দেখা মেলেনি মামনির। না দেখেই বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন সাইদুর। এমন শুন্য গোয়াল দেখে কান্নায় ভেঙে পড়ে তার পরিবার। অনেক খোঁজাখুঁজির পরও দেখা মেলেনি মামনির।
ধারণা করেন ঘাতক চোরেরা ভুটভুটি গাড়িতে করে উঠিয়ে নিয়ে গেছে গাভীসহ বাচ্চাটিকে।
বিভিন্ন জায়গায় খোঁজাখুঁজির পর না পেয়ে প্রেমতলি পুলিশ ফাঁড়িতে অভিযোগ করতে যান সাইদুর রহমান। সেখানেও বাঁধ সাধে প্রেমতুলি পুলিশের (আইসি) রফিকুল ইসলাম। বলেন,গোদাগাড়ী মডেল থানায় অভিযোগ দেন। চুরির মামলা নিয়ে আমরা কি করব। থানায় যান।
এরপর গোদাগাড়ী মডেল থানায় গেলে ওসি কামরুল ইসলাম তাকে বলেন, দু-তিনদিন আশ-পাশে খুঁজে দেখেন, না পেলে এসে মামলা দিয়েন।
এদিকে, গোদাগাড়ী পৌরসভার হলের মোড় এলাকা থেকেও ৩ টি গরু হারানোর ঘটনা ঘটছে বলে জানা যায়। গত ১৫ অক্টোবর শফিকুল ইসলামের গরু চুরি করে ঘাতক চোর। প্রায় ৩ লক্ষ টাকার সম্পদ চুরি হয়ে যাওয়ায় বাকরুদ্ধ হয়ে পড়েন শফিকুল। এ বিষয়ে গোদাগাড়ী মডেল থানায় অভিযোগ করেন তিনি।
শফিকুল ইসলাম বলেন,আমার অনেক দিনের স্বপ্ন এই ৩ টি গরু।আমার ভবিষ্যত নিয়ে গেছে তারা।
এভাবে গোদাগাড়ী মেডিকেল মোড় থেকে ২ টি, বসন্তুপুর খেতুর থেকে ২ টি সহ অসংখ্য গরু খুইয়েছেন এ অঞ্চলের অনেকেই। কেউ কেউ বলছেন গরু চুরির উৎসব চলছে এখানে !
গোদাগাড়ী থানার প্রেমতলি পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ রফিকুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমার কাছে তারা এসেছিল, আমি তাদের গোদাগাড়ী মডেল থানায় মামলা দিতে বলেছি। মামলা হয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, বিষয়টি আমার জানা নাই।
এ বিষয়ে কথা বললে গোদাগাড়ী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ কামরুল ইসলাম বলেন, গতকাল আমার কাছে তার ভাই এসেছিল ! প্রাথমিক অভিযোগ নিয়েছি, প্রাথমিক অভিযোগে ঘটনার সত্যতা পেয়েছি, গরুর মালিককে নিয়ে এসে মামলা দিতে বলেছি। এখনও কেউ মামলা দিতে আসেনি।