লালমনিরহাট নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ৭, ২০২২, ৭:৩৩ অপরাহ্ন / ৩৬৯
লালমনিরহাট নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে অর্ধকোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ

মোঃ মাসুদ রানা রাশেদ, লালমনিরহাট প্রতিনিধি: লালমনিরহাট নার্সিং কলেজ ২০২১-২২ শিক্ষাবর্ষের ক্রয় সামগ্রী ও সেবা ব্যয়ের ভূয়া বিল ভাউয়ার দেখিয়ে প্রায় ৪০লক্ষ টাকা আত্মসাৎ করার অভিযোগ উঠেছে ‌অধ্যক্ষের বিরুদ্ধে।

২০০৯ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নার্সিং এন্ড মিড ওয়াইফারি প্রশিক্ষণের মান আন্তর্জাতিক মানের ঘোষণা দেন। বিশ্বমানের নার্সিং কাউন্সিল করার জন্য এখানকার প্রতিটি শিক্ষার্থীকে লেখাপড়ার পাশাপাশি হাতে-কলমে প্রশিক্ষণের উপর গুরুত্ব দেন। অথচ এই প্রতিষ্ঠানে যারা দায়িত্ব পালন করছেন তারা নিজেদের স্বার্থে বিভিন্ন কোর্সের ব্যয়ের ভূয়া বিল ভাউচার বানিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

লালমনিরহাট নার্সিং কলেজটি জেলা শহরের সাপটানা-নয়ারহাট রোডে লালমনিরহাট সদর হাসপাতালের পিছনে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের পাঠদানের মাধ্যমে কলেজের কার্যক্রম শুরু হয়। বর্তমানে সেখানে নার্সিং এর ৩টি কোর্স চালু রয়েছে যা বাংলাদেশের কোনো জেলার নার্সিং কলেজে নেই। বি,এস,সি ইন নার্সিং সায়েন্স, ডিপ্লোমা ইন নার্সিং সায়েন্স এন্ড ওয়াইফারি এবং ডিপ্লোমা ইন মিড ওয়াইফাই নামে বর্তমানে ৩টি কোর্স লালমনিরহাট নার্সিং কলেজে চালু রয়েছে। সেখানে বিভিন্ন কোর্সে ছাত্র-ছাত্রী রয়েছে প্রায় ৩শত ২০জন।

লালমনিরহাট নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষ ছায়েবা বেগম ২০১৯ সালে ২৯ জানুয়ারি যোগদানের পর থেকেই দূর্নীতি শুরু করেন যা গত অর্থ বছরে বিল ভাউচারে বানিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

জানা যায়, ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ডিপ্লোমা ইন মিড ওয়াইফারি কোর্সের বিভিন্ন বিষয়ের অতিথি শিক্ষকের ক্লাস গ্রহণের সম্মানী ভাতা বিল বানিয়ে ১লক্ষ ২০হাজার টাকা তুলে নেয়। অত্র কার্যালয়ের মিড ওয়াইফাই ছাত্র-ছাত্রীদের প্রশিক্ষণের জন্য ডিএনসি সেট ক্রয় বাবদ ভাউচারে দ্বিগুণ বিল বানিয়ে টাকা উত্তোলন করেন। বিলে ব্যয় করা টাকার সরঞ্জাম পাওয়া যায়নি বললেই চলে।

এছাড়া তিনি সার্জিক্যাল, কম্পিউটার সার্ভিসিং, মনিহারি এবং বই ক্রয়সহ বিভিন্ন ক্রয়ের নামে বিল ভাউচার বানিয়ে প্রায় ৪০লক্ষ টাকা ব্যয় দেখিয়ে আত্মসাৎ করেন যা বিলের ভাউচারে দেখলে বুঝা যায়। ভাউচারে অসংগতিসহ এক এক বিলে ১০গুন হতে ২০গুন দেখিয়ে টাকা তুলে নেন তিনি। সেখানে ফান্ডামেন্টালস অফ নার্সিং নামের একটি বই দেখানো হয়েছে ৪হাজার টাকা এবং বিভিন্ন দোকানের নামে বেনামে বিল ভাউচার বানিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা উত্তোলন করেছে।

এ বিষয়ে লালমনিরহাট নার্সিং কলেজের অধ্যক্ষ ছায়েবা বেগমের সাথে কথা বলতে গেলে তিনি কোন কথার উত্তর না দিয়ে অফিস সহকারী আরিফ আহমেদকে ডেকে এনে সাংবাদিককে ম্যানেজ করার চেষ্টা করেন। আরিফ আহমেদ গত বছরে নার্সিং কলেজের অফিস সহকারী হিসেবে যোগদান করেন। তিনি অকপটে স্বীকার করেন কাজ করলে ভুল হবে তাই অধ্যক্ষ ও আমার ভুল হয়েছে। অবশ্য গুগলে সার্চ দিলে পণ্যের দাম দেখা যায় এটা ঠিক। গত ৩বছরের বাজেটের টাকা একবারে দিয়েছে। আপনারা যা জিজ্ঞেস করেছেন আমরা সঠিক ভাবে জবাব দিতে পারবো না। কারণ এক প্যাকেট A4 সাইজের কাগজের দাম ৪শত টাকার উর্ধ্বে নয় তা লেখা হয়েছে ৫শত ২০টাকা।