পলাশবাড়ীতে পাওনা টাকা উদ্ধারে আওয়ামীলীগ-বিএনপি সংঘর্ষ, গুরুতর আহত ৩


প্রকাশের সময় : অক্টোবর ৩১, ২০২২, ১১:৪৯ অপরাহ্ন / ৪১১
পলাশবাড়ীতে পাওনা টাকা উদ্ধারে আওয়ামীলীগ-বিএনপি সংঘর্ষ, গুরুতর আহত ৩


সুমন সরকার গাইবান্ধা প্রতিনিধি
গাইবান্ধার পলাশবাড়ীতে পাওনা টাকা তোলাকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগ ও বিএনপির সংঘর্ষে অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।এর মধ্যে গুরুতর আহতদের ৩ জন কে শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

সোমবার(৩১ অক্টোবর) বিকেলে পলাশবাড়ী পৌর এলাকার তিনমাথা মোড়ে এ ঘটনা ঘটে।
আহতরা হলেন,জেলা ছাত্র দলের সাংগঠনিক সম্পাদক রবিউল ইসলাম লিয়াকত, ছাত্রদল কর্মী ইমরান,রাকিবসহ আরও কয়েকজন।

স্থানীয়রা জানান,পলাশবাড়ী পৌর এলাকার মেডিকেল মোড়ের ব্যাটারী ব্যবসায়ি ইমরান সরকারের সাথে গাইবান্ধা জেলা শহরের ব্রীজ রোডের ব্যাটারী ব্যবসায়ী অলিউর রহমানের ব্যবসায়িক লেনদেন নিয়ে পাওনা টাকা উদ্ধারের জেরে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

ব্যবসায়ী অলিউর ইমরান সরকারের কাছ থেকে পাওনা টাকা উদ্ধারের জন্য পলাশবাড়ীর তাঁতী লীগের সাবেক নেতা শরিফুজ্জামান প্রধান পল্ববের স্বরনাপন্ন হন। অপর পক্ষে ইমরান বিষয়টি সমাধানের জন্য পলাশবাড়ী পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক ও তার ব্যবসায়িক পার্টনার শামিম রেজার কাছে যান।এরপর জেরকৃত টাকা নিয়ে শামিম রেজার সাথে শরিফুজ্জামান পল্ববের মোবাইলে বাকবিতন্ডাসহ গালিগালাজ এর ঘটনা ঘটে। পরে রোববার সন্ধ্যায় শরিফুজ্জামান পল্ববের নেতৃত্বে ৩০/৩৫ জনের একটি গ্রুপ তিনমাথা মোড়ে শামিম রেজাকে বেধড়ক মারপিট করে কোমরের নিচে ছুরিকাঘাত করে। এতে শামিম রেজার অবস্থা বেগতিক হলে তাকে গাইবান্ধা সদর হাসপাতালে চিকিৎসা প্রদান শেষে পলাশবাড়ী হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এরই জের ধরে ৩১ অক্টোবর সোমবার বিকেলে পলাশবাড়ীর সাবেক আওয়ামীগ নেতা ও পৌর মেয়র গোলাম সারোয়ার বিপ্লবের নেতৃত্বে আবারও যুবলীগ তাঁতীলীগসহ ৪০/৫০ জনের একটি গ্রুপ তিনমাথা মোড় এলাকায় ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবকদলের কর্মীদের উপর দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়।এতে উভয়পক্ষের অন্তত ১০ জন আহত হয়।বর্তমানে এ হামলায় দেশীয় অস্ত্র হাসুয়ার চোটে মাথায়, হাতে ও পায়ে আঘাত পেয়ে গুরুত্বর আহত হয় অন্তত ৫ জন। পরে আশংকাজনক অবস্থায় ৩ জন গুরুতর আহতদের শহীদ জিয়াউর রহমান মেডিকেল কলেজ এন্ড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

আহত ১। রবিউল ইসলাম লিয়াকত (৩০) সাংগঠনিক সম্পাদক গাইবান্ধা জেলা ছাত্রদল। তাহার ডান পায়ে হাটু উপরে ৪টা সেলাই, বাম হাতে শাহাদাৎ আঙ্গুলে ৪ টা সেলাই, মাথার ডান সাইটে পিছনের অংশে ৪ টা সেলাই, মাথার সামনে ৩ টা সেলাই, মাথার মাঝে ২ টা সেলাই রয়েছে৷ ২। রাকিব (২৩) পৌর স্বেচ্ছাসেবকদলের সদস্য। তাহার মাথার পিছন সাইটে ৭ টা সেলাই ও বাম হাত ৩ ভাঙ্গা দিয়েছে। ৩। ইমরান (২২) পৌর স্বেচ্ছাসেবকদলের সদস্য।তাহার ডান কাধের নিচে গভীর খত প্রায় ৭ টা সেলাই। সে গুরুতর আহত। উপরোক্ত তিনজন বগুড়া জিয়াউর রহমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

মিল্লাত সরকার মিলন (৩২) সহ সাধারণ সম্পাদক জেলা ছাত্রদল গাইবান্ধা। হাতে পায়ে এলোপাতাড়ি মারডাংয়ের শিকার। রিপন (২২) পবনাপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সদস্য,উপরোক্ত ২ জন পলাশবাড়ী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা গ্রহন করে নিজ বাড়ীতে ফিরেছেন৷ তবে আওয়ামীলীগ ও সহযোগী সংগঠনের কোন পদধারী কেউ আহত হয়েছে কিনা এখনো জানা সম্ভব হয়নি।

এ ব্যাপারে পলাশবাড়ী থানার (ওসি তদন্ত) দিবাকর অধিকারী প্রতিবেদক কে বলেন,সংঘর্ষের ঘটনায় বিএনপি ও আওয়ামীলীগ উভয় পক্ষ থানায় এজাহার দিয়েছে। ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।