মানিকছড়িতে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার সমাপনী অনুষ্ঠান


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ১৭, ২০২২, ১১:২৮ পূর্বাহ্ন / ৪৯২
মানিকছড়িতে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার সমাপনী অনুষ্ঠান

 

এম. জুলফিকার আলী ভূট্টো, বিশেস প্রতিনিধি-

“উদ্ভাবনী জমৌল্লাসে স্মার্ট বাংলাদেশ” এই প্রতিপাদ্যকে সামনে রেখে খাগড়াছড়ির মানিকছড়িতে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলার সমাপনী ও পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়েছে।

১৬ নভেম্বর-২০২২ খ্রি. বুধবার বিকেলে ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলা সমাপণী অনুষ্ঠানের সভাপতিত্ব করেন, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, রক্তিম চৌধুরী। উপজেলা প্রাণী সম্পদ অফিসার, ডা. সূচয়ন চৌধুরী সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, খাগড়াছড়ি জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) নাজমুন আরা সুলতানা। অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, সহকারী কমিশনার (ভূমি) রুম্পা ঘোষ ও উপজেলা কৃষি অফিসার, কৃষিবিদ মো. হাসিনুর রহমান প্রমুখ।

এ সময় মানিকছড়ি সরকারি কলেজের অধ্যক্ষ, মংচাইক্রো মারমা, মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার, মো. লিয়াকত আলী, উপজেলা পরিসংখ্যান অফিসার, রাকেশ বিশ্বাস, উপজেলা মৎস্য অফিসার, প্রণব কুমার সরকার, উপজেলা সমাজ সেবা অফিসার, মো. মুরাদ হোসেনসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান প্রধান, সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

ডিজিটাল উদ্ভাবনী মেলায় অংশগ্রহণকারী সরকারি- বে-সরকারি প্রতিষ্ঠান প্রকল্প উপস্থাপনকারী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করা হয়।
এর আগে দুই দিন ব্যাপী ৪৪ তম জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ, বিজ্ঞান মেলা ও ৭ম জাতীয় বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড মেলার উদযাপন উপলক্ষে বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মাঝেও পুরস্কার বিতরণ করা হয়।

মেলায় ৪ টি প্যাভিলিয়নে ৩০টি প্রতিষ্ঠান অংশগ্রহণ করে। যার মধ্যে প্যাভিলিয়ন-১ (উদ্যোগ এবং স্টার্টআপ), প্যাভিলিয়ন-২ (ডিজিটাল সেবা), প্যাভিলিয়ন-৩ (হাতের মুঠোয় সেবা), প্যাভিলিয়ন-৪ (শিক্ষা, দক্ষতা উন্নয়ন ও কর্মসংস্থান) মেলায় সরকারি দপ্তর সমূহের অংশগ্রহণের মাধ্যমে নাগরিক বান্ধব সেবা প্রদানের ব্যবস্থা করা হয়। সেই সাথে সেবা প্রদান প্রক্রিয়া সম্পর্কে অবহিতকরণ ও উন্নয়ন সম্পর্কিত সেবার প্রদর্শনী লক্ষ করা যায়। উদ্ভাবনী এ মেলায় অংশগ্রহণকারী প্রতিষ্ঠানের মধ্যে তিন স্টলকে মূল্যায়ন পূর্বক পুরষ্কৃত করা হয়। এতে ১ম স্থান অধিকার করেন, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিস, ২য় স্থান তথ্য আপা প্রকল্প ও ৩য় স্থান নির্বাচিত হন বে-সরকারি উন্নয়ন সংস্থা কারিতাস বাংলাদেশ।