রংপুরে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আলুর বাম্পার ফলনের আশা কৃষকদের


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ১২, ২০২২, ১১:১৭ অপরাহ্ন / ৪০৩
রংপুরে আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে আলুর বাম্পার ফলনের আশা কৃষকদের
  • রিয়াজুল হক সাগর রংপুর জেলা প্রতিনিধিঃ

চলতি বছর রংপুরে বেশ ভালো ফলন হচ্ছে আলুর। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে বাম্পার ফলন হবে বলে আশা করা হচ্ছে। তাই লাভের আশায় তামাক চাষ বাদ দিয়ে আগাম আলু চাষে ঝুঁকছেন কৃষকরা। নতুন আলুর প্রত্যাশিত দাম পাওয়ার বিষয়ে আশাবাদী কৃষকরা।
রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর বলছে, গত বছর রংপুরে দুই হাজার ২১ হেক্টর জমিতে আগাম আলুর চাষ হয়েছিল। চলতি বছর চাষ হয়েছে দুই হাজার ৩৭১ হেক্টর জমিতে, যা গত বছরের তুলনায় ৩৫১ হেক্টর বেশি। চলতি বছর ৫৩ হাজার ৫৫০ হেক্টর জমিতে আলু চাষের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে। উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩ লাখ ৯২ হাজার ৩০০ টন। অক্টোবর পর্যন্ত আলুর উৎপাদন বেশ ভালো হয়েছে। আগামী দুই মাসে আলু উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা অর্জন সম্ভব হবে।
কৃষকদের ভাষ্য, পুরনো আলু বাজারে ২০-৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। নতুন আলু আরো বেশি দামে বিক্রি হবে। এ জন্য তাঁরা আগাম আলু চাষে ঝুঁকেছেন।
গঙ্গাচড়া উপজেলার কৃষক এমাদ উদ্দিন আহমেদ জানান, গত বছরের চেয়ে দুই বিঘা বেশি জমিতে আলু চাষ করেছেন তিনি। ফলনও বেশ ভালো হয়েছে। প্রত্যাশিত দাম পাওয়ার বিষয়ে তিনি আশাবাদী।
মিঠাপুকুর উপজেলার খোড়াগাছ ইউনিয়নের কৃষক রবিউল ইসলাম জানান, তামাক উত্পাদনের চেয়ে আলু উৎপাদনের খরচ অনেক কম। তাই তামাক চাষ বাদ দিয়ে আলু চাষ শুরু করেছেন তিনি।
তারাগঞ্জ উপজেলার কৃষক রজনীকান্ত বর্মন জানান, আগে এই জমিতে তামাক চাষ করা হতো। বেশি পরিশ্রমের পাশাপাশি তামাক চাষে রোগাক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকিও বেশি। তাই তামাক বাদ দিয়ে আগাম আলু চাষ শুরু করেছেন তিনি।
রংপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক মো. ওবায়দুর রহমান মণ্ডল বলেন, আগাম আলু চাষের জন্য কৃষি অফিস থেকে নিয়মিত কৃষকদের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। আলুতে পচন বা পোকার আক্রমণ ঠেকানোর পদ্ধতি কৃষকদের জানানো হচ্ছে। আবহাওয়া অনুকূলে থাকলে চলতি বছর আলুর বাম্পার ফলন হবে।