রসিক) নির্বাচনকে ঘিরে সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টিতে দ্বন্দ্ব কাজে লাগাতে চায় আ’লীগ


প্রকাশের সময় : নভেম্বর ১৯, ২০২২, ৯:১০ অপরাহ্ন / ৩২৬
রসিক) নির্বাচনকে ঘিরে সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টিতে দ্বন্দ্ব কাজে লাগাতে চায় আ’লীগ

 

রিয়াজুল হক সাগর, রংপুর জেলা প্রতিনিধিঃ।

আসন্ন রংপুর সিটি কর্পোরেশন (রসিক) নির্বাচনকে ঘিরে সংসদের বিরোধী দল জাতীয় পার্টিতে দ্বন্দ্ব চরম আকার ধারণ করেছে। দলটির চেয়ারম্যান জি এম কাদেরের অনুসারীরা এতদিন সরব হলেও এখন নিরবতা ভেঙ্গেছে প্রধান পৃষ্ঠপোষক রওশন এরশাদের অনুসারীরা। তারাও প্রার্থী দিতে চায়। এর ফলে এবারের নির্বাচনে দলটির মেয়র প্রার্থী নিয়ে তৈরি হয়েছে জটিলতা।
এদিকে জাতীয় পার্টির দুর্গখ্যাত রংপুরে এমন দ্ব›েদ্বর সুযোগ কাজে লাগাতে চায় ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। তারা মেয়র পদে এখনোও প্রার্থী চুড়ান্ত না করলেও শীঘ্রই প্রার্থী চুড়ান্ত করবেন। তবে স্থানীয় জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা বলছেন, রংপুর হচ্ছে জাতীয় পার্টির দুর্গ। এর ফলে রসিক নির্বাচনে কোনো প্রভাব পড়বে না। তাদের প্রার্থীর কাছে কেউ পাত্তাই পাবে না।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, জাতীয় পার্টি এখন দুই ভাগে বিভক্ত হলেও রংপুরে জিএম কাদেরের অনুসারী বেশি। কাদের-রওশন দ্ব›েদ্বর ফলে দুজনেই রসিক নির্বাচনে প্রার্থী দিতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। ইতিমধ্যে বর্তমান মেয়র মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফাকে জিএম কাদেরের পক্ষে মনোনয়ন দিয়েছেন দলটির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু। মোস্তাফিজার গত নির্বাচনেও লাঙ্গলের মনোনয়ন নিয়ে নির্বাচন করে বিপুল ভোটে জয়ী হন। কিন্তু রওশন-রাঙা পক্ষ এখনো কোনো প্রার্থী দেয়নি। তফসিল ঘোষণার আগে রওশনের কাছ থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন বলে প্রচারণা চালিয়েছিলেন সাবেক পৌর মেয়র ও প্রবাসী নেতা এ কে এম আব্দুর রউফ মানিক। কিন্তু তফসিল ঘোষণার পর তাঁকে আর প্রচারণায় দেখা যায়নি। তাঁর ঘনিষ্ঠ সূত্রে জানা গেছে, তিনি এখন আমেরিকায় অবস্থান করছেন। তিনি দেশে আসবেন কি না তা এখনও নিশ্চিত নয়।
তবে রওশনের পক্ষে রসিক নির্বাচনে মেয়র পদে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য ঢাকায় জাসদের এক নেতা আছেন বলে জানা গেছে। তাকে নিয়েও বির্তক রয়েছে। কারণ তিনি অবাঙালী ও হুন্ডি ব্যবসায়ী। হঠাৎ করে তার উত্থান হয়েছে। এর ফলে তাকে নিয়েও বির্তক রয়েছে।
রংপুর জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা জানান, জিএম কাদেরের ওপর নিষেধাজ্ঞার নিষ্পত্তি না করে তা ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। এখান থেকে স্পষ্ট হয় যে এর পেছনে সরকারের হাত রয়েছে। সাধারণ মানুষ ও জাতীয় পার্টির কাছে সরকারের রওশন এরশাদকে নিয়ে কলকাঠি নাড়ার বিষয়টি পরিষ্কার হয়েছে উঠেছে। এতে সরকারেরই ক্ষতি বলে জানান নেতা-কর্মীরা।
রংপুর মহানগর জাতীয় পার্টির সাধারণ সম্পাদক এস এম ইয়াসির বলেন, রংপুরের জাতীয় পার্টির নেতা-কর্মীরা এক। সবাই দলের চেয়ারম্যান জিএম কাদের অনুসারী। ইতিমধ্যে মোস্তাফিজার রহমানকে লাঙ্গলের মনোনয়ন দিয়েছে। এখানে অন্য কেউ আসার সুযোগ নেই। তবে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ একটা ষড়যন্ত্রের ছক কষছে। যারা শঙ্কা তৈরি করতে চায় তাদের জবাব দিতে আমরা প্রস্তুত।
লাঙ্গলের মনোনয়ন পাওয়া বর্তমান মেয়র ও দলটির মহানগর কমিটির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা বলেন, ‘রসিক নির্বাচনে আমার কোনো বিকল্প নেই। রংপুরে জাপা বিভক্ত হয়নি। সবাই এক হয়ে কাজ করছেন। এখানে কোনো বিভাজন নেই। তবে ক্ষমতাসীন দল ষড়যন্ত্র করছে। এতে কোনো লাভ হবে না। আমরা সব দিক দিয়ে প্রস্তুত রয়েছি।’
এদিকে প্রস্তুতিতে রসিক নির্বাচনে সব দিক থেকে জাতীয় পার্টি এগিয়ে থাকলেও ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ এখনো প্রার্থী চূড়ান্ত করতে পারেনি। তবে তারা শক্তশালী প্রার্থী দিতে পারে বলে ধারণা করা যাচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সিটি নির্বাচনের জন্য ২০ নভেম্বর মনোনয়নপত্র বিক্রি শুরু করবে। তবে রসিক নির্বাচনে হাফ ডজন নেতা প্রচারণা চালিয়েছেন। কে পাবেন নৌকা এ নিয়ে সংশয় কাজ করছে নেতা-কর্মীদের মধ্যে। উল্লেখ্য, নির্বাচনী তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন ২৯ নভেম্বর, ১ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র বাছাই এবং ৮ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ তারিখ।